আপডেট
স্বাগতম! ইসলামিক সঠিক জ্ঞান নিয়ে ”ইসলামী জীবন” আপনার পাশে। নিয়মিত ভিজিট করুন, দেখুন বিষয়ভিত্তিক পোস্টগুলো আর শিখতে থাকুন... হোয়াটসেপ সার্ভিসে জয়েন হতে “Post” লিখে সেন্ড করুন এই “01511993330” হোয়াটসেপ নাম্বারে। আমাদের ওয়েবসাইট www.islamijibon.net । ধন্যবাদ!
বাংলা ভাষায় অলাভজনক বৃহত্তম ইসলামিক ওয়েবসাইট বানানোর প্রত্যয়ে কাজ করে যাচ্ছে ইসলামী জীবন টিম। আসছে মোবাইল অ্যাপলিকেশন... সাইট www.islamijibon.net
মাসআলা-মাসাইল ও প্রশ্নোত্তর লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান
মাসআলা-মাসাইল ও প্রশ্নোত্তর লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান

বুধবার, ৩ জুন, ২০২০

'কসম' , কসম ভঙ্গ ও কাফফারা সম্পর্কিত মাসআলা (আপডেট চলমান)

কসমের সংজ্ঞা 

কসমকে আরবি ভাষায় ‘ইয়ামীন’ বলা হয়। অর্থাৎ ডান দিক। যেহেতু আরব লোকেরা কসম করা ও গ্রহণ কালে সাধারণতঃ পরস্পর ডান হাত মিলাত, তাই একে ইয়ামীন বলে থাকে। ইয়ামীন শব্দটি আবার ‘ইয়ামন’ শব্দ থেকে সৃষ্টি হয়েছে। এর অর্থ হল বরকত ও শক্তি। কসমে যেহেতু আল্লাহ্ তা‘আলার বরকতপূর্ণ নামও ব্যবহার করা হয়, এবং তা দ্বারা নিজের উক্তিতে শক্তি প্রদান করা হয়, তাই তাকে ইয়ামীন বলা হয়। অর্থাৎ বরকতপূর্ণ ও শক্তিশালী উক্তি বা কথা। (মিরআতুল মানাজীহ্, ৫ম খন্ড, ৯৪ পৃষ্ঠা)।
শরীয়াতের পরিভাষায় সেই চুক্তিকেই কসম বলা হয়, যার মাধ্যমে শপথকারী কোন কাজ করা বা না করা সম্পর্কে কঠিন ও মজবুত ইচ্ছা প্রকাশ করে। (দুররে মুখতার, ৫ম খন্ড, ৪৮৮ পৃষ্ঠা)।  উদাহরণ স্বরূপ, কেউ বলল: ‘আল্লাহর কসম, আমি আগামী কাল তোমার সব ঋণ পরিশোধ করে দিব’ -তাহলে এটি কসম। 

শুক্রবার, ২২ মে, ২০২০

হায়জ ও নেফাস সম্পর্কে আটটি মাদানী ফুল

﴾১﴿ ইসলামী বোনেরা হায়জ ও নেফাস কালে দরসও দিতে পারবেন, বয়ানও করতে পারবেন। ইসলামী কিতাব স্পর্শ করাতেও কোন বাধাঁ নেই। তবে কুরআন শরীফে হাত, আঙ্গুলের মাথা কিংবা শরীরের কোন অংশ লাগানো নিষেধ ও হারাম। তাছাড়া কোন কাগজে বা চিরকুটে যদি কুরআন শরীফের আয়াত লিখিত থাকে এবং অন্য কিছু লেখাও পাশাপাশি না থাকে, তা হলে সেই ধরণের কাগজের সামনে-পিছনে কোণায় বা কোন অংশেই স্পর্শ করার অনুমতি নেই।

﴾২﴿ হায়েজ ও নেফাস অবস্থায় পবিত্র কুরআন কিংবা পবিত্র কুরআনের কোন আয়াত পাঠ করা ও স্পর্শ করা উভয়টি হারাম। পবিত্র কুরআনের বাংলা, ইংরেজী, ফার্সী, উর্দু কিংবা যে কোন ভাষায় অনুদিত অংশ পাঠ করা ও স্পর্শ করাও স্বয়ং কুরআন পাঠ করা ও স্পর্শ করারই সমতুল্য। (বাহারে শরীয়াত, ২য় খন্ড, ৪৯, ১০১ পৃষ্ঠা)

মঙ্গলবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

২৮ টি কুফরী বাক্য

অভাব-অনটন, রোগ-শোক, মানসিক কষ্ট এবং আপন জনের মৃত্যুতে অনেক লোক আঘাতের আতিশয্যে কিংবা উত্তেজনায় এসে আল্লাহর পানাহ্! কুফরী বাক্য বলে থাকে। আল্লাহ তাআলার বিরুদ্ধে আপত্তি করা, তাঁকে অত্যাচারী, অভাবী, পর-মুখাপেক্ষী অথবা অপারগ মনে করা কিংবা বলা, এসবই প্রকাশ্য কুফরী বাক্য। স্মরণ রাখবেন! শরীয়াতের অনুমতি ছাড়া জেনে বুঝে যে প্রকাশ্য কুফরী বাক্য বলে এবং অর্থ জানা সত্ত্বেও যে ব্যক্তি তাতে হ্যাঁ বলে বরং এর পক্ষে যে ব্যক্তি মাথা নেড়ে সায় দেয়, সেও কাফির হয়ে যায়। এর বিবাহ-বন্ধন ও বাইয়াত ভঙ্গ হয়ে যায় এবং জীবনের সমস্ত নেক আমল ধ্বংস হয়ে যায়। যদি হজ্ব আদায় করে থাকে, তবে তাও নষ্ট হয়ে যায়। এমতাবস্থায় ঈমান নবায়নের পর (অর্থাৎ পুনরায় নতুন ভাবে মুসলমান হওয়ার পর) সামর্থ্যবান হওয়া সাপেক্ষে নতুন সূত্রে হজ্ব ফরয হবে।

বিপদের সময় বলা হয়, এমন কতিপয় কুফরী বাক্যের উদাহরণ

(১) আপত্তি করে বলা: ঐ ব্যক্তি লোকদের সাথে যা কিছুই করুক, আল্লাহর পক্ষ থেকে তার জন্য পূর্ণ (FULL) স্বাধীনতা রয়েছে।

(২) এইভাবে আপত্তি করে বলা: কখনো আমরা অমুকের সাথে সামান্য কিছু করলে আল্লাহ তৎক্ষনাৎ আমাদের পাকড়াও করে ফেলেন।

(৩) আল্লাহ সর্বদা আমার শত্রুদের সহায়তা করেছেন। 

(৪) সর্বদা সবকিছু আল্লাহর সমীপে সমর্পণ করেও দেখেছি, কিছুই হয়না। 

(৫) আল্লাহ তাআলা আমার ভাগ্যকে এখনো পর্যন্ত সামান্য ভাল করলেন না। 

বুধবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

আকিকা সম্পর্কিত প্রশ্নোত্তর

(আকিকা বিষয়ে জানতে এই পোস্টের ৩২ টি প্রশ্নোত্তর সম্পূর্ণ পড়ে নিন। আকিকা বিষয়ে আপনার মনের অনেক প্রশ্নের উত্তর পাবেন এখানে- ইসলামী জীবন টিম।)

আকিকা শব্দের অর্থ

(১) প্রশ্ন: আকিকা শব্দের অর্থ কি?
উত্তর: আকিকা এর শাব্দিক অর্থ: আকিকা শব্দটি عَقٌّ থেকে নির্গত। এর অর্থ হচ্ছে কাটা, পৃথক করা। (মিরাত, ৬ষ্ঠ খন্ড, ২ পৃষ্ঠা)
আকিকার পারিভাষিক অর্থ: বাচ্চা জন্ম লাভের কৃতজ্ঞতা আদায়ার্থে যে পশু জবাই করা হয় তাকে আকিকা বলে। (বাহারে শরীয়াত, ৩য় খন্ড, ৩৫৫ পৃষ্ঠা)

বড় পরিসরে কাজ করার জন্য আমাদের পাশে দাঁড়ান...



(২) প্রশ্ন: আকিকা করার ক্ষেত্রে কি কি ভাল নিয়্যত করা উচিত?
উত্তর: সন্তান/ সন্ততি জন্ম লাভের খুশিতে আল্লাহ্ তাআলার নেয়ামত লাভের কৃতজ্ঞতা আদায়ার্থে, সুন্নাত পালনার্থে আল্লাহ্ তাআলার সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে, আকিকা করার সৌভাগ্য অর্জন করছি। তা ছাড়াও অবস্থা অনুযায়ী আরো নিয়্যত করা যায়। মনে রাখবেন! ভাল নিয়্যত ব্যতিত কোন নেক কাজের সাওয়াব পাওয়া যায় না। মূল কথা হচ্ছে, আকিকা করার সময় অন্তরে আকিকার নিয়্যতের সাথে সাথে যত ভাল ভাল নিয়্যত হবে তার সাওয়াবও ততবেশি হবে। নবী করীম, রউফুর রহীম صَلَّی اللّٰہُ  تَعَالٰی عَلَیْہِ  وَاٰلِہٖ وَسَلَّم ইরশাদ করেছেন: "نِيَّةُ الْمُؤْمِنِ خَيْرٌمِنْ عَمَمِه অর্থাৎ নিয়্যত তার আমল থেকে উত্তম।”(আল-মুজামুল কবীর লিত তাবারানি, ৬ষ্ঠ খন্ড, ১৮৫ পৃষ্ঠা, হাদীস নং- ৫৯৪২)

আকিকা কি, আকিকা কখন করতে হয়, আকিকার নিয়ম, আকিকার পদ্ধতি, আকিকার পশু, আকিকার হুকুম, আকিকার বিধান, আকিকা কেন করতে হয়, আকিকা না করলে, আকিকা ছাড়া মারা গেলে, আকিকার বয়স, আকিকার গরু, আকিকার ছাগল
আকিকার মাসআলা


আকিকা আদায় করে না এমন ব্যক্তি কি গুনাহগার হবে?

পোস্ট শ্রেণি

অযু-গোসল-পবিত্রতা (12) আপডেট চলমান (25) আমাদের কথা ও অন্যান্য বিষয়াবলী (6) আমাদের প্রিয় নবী ﷺ (4) আরবি মাস ও ফযীলত (11) ইসলামী ইতিহাস ও শিক্ষনীয় ঘটনা (4) ইসলামী জীবন ও সুন্দর চরিত্র (4) ঈদ-কাযা-জানাযা-তারাবী-নফল ও অন্যান্য নামায (5) উত্তম আমল ও সাওয়াবের কাজ (4) কুরআন-তাফসীর ও হাদিস (16) কুরবানী (6) চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য কথন (14) জিকির-দোআ-দুরূদ ও ফযীলত (8) নবী-সাহাবী ও আওলিয়াদের জীবনী (8) নামায (17) পর্দা ও লজ্জাশীলতা (16) ফয়যানে জুমা (3) বদ আমল ও গুনাহের কাজ (2) মওত-কবর-হাশর ও আযাব (12) মাসআলা-মাসাইল ও প্রশ্নোত্তর (4) মাসাইল (30) যাকাত-ফিতরা ও সদক্বাহ'র বিধান (1) রোযা/রমযানের বিধান ও ফযীলত (9) সুন্নাত ও আদব/ মাদানী ফুল (38) হজ্ব-ওমরাহ ও যিয়ারতে মদিনা (27)

আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন